VPN কি? ভিপিএন কিভাবে কাজ করে এবং এর সুবিধা 2022

VPN কি এই সম্পর্কে আজকে বিস্তারিত তথ্য তুলে ধরার চেষ্টা করবো। এখান থেকে কয়েক বছর আগে অনেকে ফ্রিতে ইন্টারনেট ব্যবহার করার জন্য ভিপিএন ব্যবহার করতো।

আবার অনেকে ব্যবহার করতো ইন্টারনেট স্পিড বৃদ্ধি করার জন্য। সেই সময় অধিকাংশ মানুষ মনে করতো VPN মানে ফ্রিতে ইন্টারনেট ব্যবহার করা যাবে।

কিন্তু, এই ধারণা সম্পূর্ণ ভুল। VPN মানে হলো Virtual Private Network. এই ভার্চুয়াল প্রাইভেট নেটওয়ার্ক এর সাহায্যে আপনি নিজের প্রাইভেসি সুরক্ষা করতে পারবেন।

ইন্টারনেটে এমন অনেক ব্লক ওয়েবসাইট রয়েছে, যেগুলো বিভিন্ন দেশ বা জায়গায় জন্য বন্ধ রাখা হয়। এই ওয়েবসাইট গুলোতে প্রবেশ করার জন্য VPN ব্যবহার করা হয়।

বর্তমানে ইন্টারনেট ব্যবহারকারীর সংখ্যা দিন দিন বৃদ্ধি পাচ্ছে। সেই সাথে চুরি হচ্ছে মানুষের মূল্যবান (data) ডাটা গুলো।

তাই নিজেকে সুরক্ষিত রাখার জন্য এবং পার্সোনাল ডাটা গুলোকে চুরির হাত থেকে রক্ষা করার জন্য VPN এর ব্যবহার দিন দিন বৃদ্ধি পাচ্ছে। 

আপনি যখন VPN ব্যবহার করে ইন্টারনেট ব্যবহার করবেন তখন আপনার লোকেশন (location) হাইড (Hide) করে রাখা হবে এবং আপনার লোকেশন এর জায়গায় অন্য দেশের লোকেশন দেখানো হবে।

এর ফলে অনলাইন হ্যাকার আপনার মূল্যবান ডাটা চুরি করার জন্য আপনার নেটওয়ার্ক (network) হ্যাক করতে পারবে না।

তাহলে চলুন নিচে থেকে জেনে আসি ভিপিএন কি, ভিপিএন কাকে বলে, VPN এর কাজ কি এবং VPN এর সুবিধা গুলোর সম্পর্কে।

VPN কি? (What is VPN)

VPN হলো এমন একটি সুরক্ষিত কানেকশন যার মাধ্যমে আপনি ইন্টারনেটে ডিভাইস গুলোকে সুরক্ষিত ভাবে নেটওয়ার্কের সাথে সংযোগ করে ব্যবহার করতে পারবেন।

ভিপিএন ব্যবহার করার ফলে ইন্টারনেট কানেকশন আরো অধিক সিকিউরিটি ও প্রাইভেসি প্রদান করে। এর ফলে অনলাইনে থাকা হ্যাকার আপনার তথ্য (information) চুরি করতে পারে না।

বর্তমান ইন্টারনেটের মাধ্যমে অনলাইন পেমেন্ট, ট্রান্সজেশন, পার্সোনাল ডাটা গুলো আমরা খুব সহজে শেয়ার করি। এগুলো নিরাপদে শেয়ার করার জন্য VPN এর চাহিদা বৃদ্ধি পাচ্ছে।

এন্টিভাইরাস কি? সেরা ১০ টি এন্টিভাইরাসের নাম

আপনি যখন কোনো ডিভাইসে ইন্টারনেট ব্যবহার করবেন তখন আপনার একটি নিদিষ্ট IP address   থাকবে। এই IP address ব্যবহার করে আপনি কোথায় থেকে ইন্টারনেট ব্যবহার করছেন সেটা সহজে বের করা সম্ভব।

কিন্তু, আপনি যখন VPN ব্যবহার করে ইন্টারনেট ব্যবহার করবেন তখন আপনার IP address চেঞ্জ করে দেওয়া হয় বা হাইড (hide) করে রাখা হয়।

তাছাড়া, আপনি নিজেও VPN সেটিং অপশন থেকে নিজের লোকেশন ইচ্ছা মতো জায়গায় সেট করতে পারবেন।

মনে করুন, আপনি এখন বাংলাদেশ থেকে ইন্টারনেট ব্যবহার করছেন ভিপিএন সংযোগ করে। আপনি চাইলে নিজের লোকেশন আমেরিকা সেট করতে পারবেন।

যার ফলে আপনার নিদিষ্ট লোকেশন খুঁজে পাবে না এবং আপনার মূল্যবান ডাটা (data) গুলো হ্যাকার চুরি করে নিতে পারে না। এতে আপনার প্রাইভেসি সুরক্ষিত থাকে।

VPN এর পূর্ণরূপ কি?

VPN সম্পর্কে আর্টিকেল পড়ে আপনি হয়তো বুঝে গেছেন ভিপিএন একটি সংক্ষিপ্ত শব্দ। তাহলে ভিপিএন এর অবশ্যই একটি পূর্ণরূপ রয়েছে।

VPN এর পূর্ণরূপ হলো virtual private network. আপনি যদি ভিপিএন এর সাথে যুক্ত থাকেন তাহলে একটি ভার্চুয়াল নেটওয়ার্ক তৈরি হবে।

আর এই ভার্চুয়াল নেটওয়ার্ক এতোটাই শক্তিশালী হবে যে আপনার ডিভাইসের (IP address) আইপি এড্রেস হাইড (hide) বা চেঞ্জ করে নিতে পারবেন।

VPN এর কাজ কি?

যেকোনো জিনিস তৈরি করা হয় একটি উদ্দেশ্য নিয়ে কিন্তু VPN তৈরি করা হয়েছে অনেক গুলো উদ্দেশ্য বা কাজ করার জন্য।

তাহলে চলুন নিচে থেকে জেনে আসি VPN কি কি কাজ করতে পারে। 

(1) Privacy hide

প্রত্যেক ইন্টারনেট ব্যবহারকারীর জন্য জন্য প্রাইভেসি সুরক্ষিত রাখা একটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। যখন আপনি নিজের প্রাইভেসি (privacy) রক্ষা করতে পারবেন না,

তখন ইন্টারনেটে থাকা হ্যাকার দ্বারা হ্যাকিং এর শিকার হবেন। তারা আপনার নিজের পার্সোনাল তথ্য চুরি করে নিবে।

তবে, আপনি যদি VPN এর মাধ্যমে ইন্টারনেট ব্যবহার করেন তখন আপনার প্রাইভেসি সম্পূর্ণ সুরক্ষিত থাকবে। ইন্টারনেটে থাকা হ্যাকার আপনার পার্সোনাল ডাটা চুরি করতে পারবে না।

ইন্টারনেটে নিজের প্রাইভেসি সুরক্ষা করা ভিপিএন এর অন্যতম একটি কাজ।

(2) Location hide

আমরা যখন মোবাইল বা কম্পিউটার থেকে ইন্টারনেট ব্যবহার করি তখন আমাদের নিদিষ্ট একটি আইপি এড্রেস (IP address) থাকে।

এই IP address ট্রাকিং (tracking) করে আপনার লোকেশন (location) সহজে খুঁজে বের করা যাবে।

তবে, আপনি যদি ইন্টারনেট ব্যবহার করার সময় VPN সংযোগ করে ইন্টারনেট ব্যবহার করেন তাহলে আপনার লোকেশন (location) হাইড করে রাখতে পারবেন।

তাছাড়া, আপনি ভিপিএন সেটিং এর মাধ্যমে নিজের লোকেশন অন্য জায়গায় সেট করতে পারবেন।

মনে করুন আপনি বাংলাদেশ থেকে ইন্টারনেট ব্যবহার করছেন। আপনি চাইলে আপনার লোকেশন ভারত দেখাতে পারবেন VPN এর মাধ্যমে।

(3) Internet block website & app

ইন্টারনেটে এমন অনেক ওয়েবসাইট এবং অ্যাপ রয়েছে যেগুলো বিভিন্ন দেশ বা জায়গা থেকে ভিজিট করা যায় না। মানে ঔ সব দেশের জন্য ওয়েবসাইট এবং অ্যাপ ভিজিট করা বন্ধ করে দেওয়া হয়।

আপনি VPN সংযোগ করে নিজের লোকেশন চেঞ্জ করে ইন্টারনেটে থাকা ঔ সব ওয়েবসাইট বা অ্যাপ গুলোতে প্রবেশ করতে পারবেন।

তাছাড়া, কিছু কিছু ইন্টারনেট ব্যবহারকারীর IP address ব্যান করে দেওয়া হয়। তারা VPN ব্যবহার করে নিজের IP address এবং location চেঞ্জ করে প্রবেশ করতে পারবেন।

(4) Free internet

আমরা সবাই ফ্রি জিনিসের উপর একটু আলদা গুরুত্ব দেয়। কি ঠিক বলছি তো? 

এমন অনেক VPN কোম্পানি রয়েছে যাদের ভিপিএন ব্যবহার করলে ফ্রিতে ইন্টারনেট ব্যবহার করা যায়। তাই ফ্রিতে ইন্টারনেট ব্যবহার করার জন্য অনেকে VPN ব্যবহার করে।

(5) Internet speed 

আমরা চাই আমাদের ব্যবহার করা ইন্টারনেটের স্পিড যেন ভালো থাকে। বর্তমানে এমন অনেক VPN রয়েছে যে গুলোর মাধ্যমে ইন্টারনেট স্পিড বৃদ্ধি করতে পারবেন।

তাই নিজের ডিভাইসের ইন্টারনেট স্পিড বৃদ্ধি করার জন্য অনেকে VPN ব্যবহার করছে। তবে, মনে রাখবেন হাই কোয়ালিটির ইন্টারনেট স্পিড ব্যবহার করার জন্য প্রিমিয়াম ভার্ষন VPN গুলো ব্যবহার করবেন।

কারণ, ফ্রি ভার্ষন VPN গুলোতে তেমন ভালো ইন্টারনেট স্পিড আপনি পাবেন না। আশাকরি সহজে বুঝতে পারছেন VPN দিয়ে কি করে?

কিভাবে VPN এর ব্যবহার করবেন?

আপনি যদি কম্পিউটার বা মোবাইলে VPN ব্যবহার করতে চান তাহলে আপনার VPN software বা app প্রথমে ডাউনলোড করে নিতে হবে।

এরপর সেটাকে ইনস্টল করার পরে সার্ভিস enable বা on করে নিতে হবে। এবার আপনার ইন্টারনেট কানেকশনের সাথে অটোমেটিক ভাবে VPN কানেক্টেড হয়ে যাবে।

আপনি যে ভিপিএন ব্যবহার করবেন সেটার ব্যাপারে আগে ভালো করে জানার জন্য রিভিউ (review) পড়ে নিবেন।

যদি ভুয়া কোনো ভিপিএন ব্যবহার করে থাকেন তাহলে নিজের প্রাইভেসি সুরক্ষিত রাখার বিপরীতে আপনার পার্সোনাল ডাটা গুলো হ্যাকারের হাতে চলে যাবে।

তাই ভালো VPN খুঁজে বের করে তারপর সেটা ডাউনলোড করার পর ইনস্টল করে নিজের IP address সেটআপ করুন।

কম্পিউটারের জন্য ফ্রি সবচেয়ে ভালো VPN কেনটি?

কম্পিউটারে VPN ব্যবহার করার জন্য প্রিমিয়াম ভার্ষন ব্যবহার করলে অনেক বেশি লাভ বা ফিচার পাবেন। তবে, ফ্রি ভার্ষন গুলোর মাধ্যমে মোটামুটি ভালো কাজ করতে পারবেন।

আমি নিচে কম্পিউটারের জন্য যে ভিপিএন গুলোর নাম উল্লেখ করেছি সেগুলোর ফ্রি ভার্ষন আপনি ব্যবহার করে ভালো ফলাফল পাবেন।

(১) Speedify

আপনার ইন্টারনেটের স্পিড যদি স্লো হয় তাহলে এই speedify VPN software কম্পিউটারের জন্য ব্যবহার করতে পারেন।

এই ভিপিএন ব্যবহার করার ফলে আপনার ইন্টারনেট স্পিড স্লো থেকে ফাস্ট হয়ে যাবে। তাছাড়া প্রত্যেক মাসে আপনি ৫ জিপি ডাটা ফ্রিতে পেয়ে যাবেন।

(২) WindScribe 

যত গুলো Free VPN রয়েছে তার মধ্যে আমার কাছে সব থেকে ভালো লাগছে WindScribe VPN সফটওয়্যারটি। কোনো ধরনের চার্জ ছাড়াই এটা ব্যবহার করতে পারবেন।

এই ভিপিএন ব্যবহারের জন্য প্রত্যেক মাসে আপনাকে ১০ জিপি ডাটা সম্পূর্ণ ফ্রিতে দেওয়া হবে।

(৩) Tunnelbear

আপনি যদি নতুন VPN ব্যবহারকারী হয়ে থাকেন তাহলে Tunnelbear VPN সফটওয়্যার কম্পিউটারে ব্যবহার করতে পারেন।

নতুনদের জন্য এই ভিপিএন সফটওয়্যার অনেক কাজের এবং সহজ ফিচার। এই VPN এর মাধ্যমে প্রত্যেক মাসে ৫০০ এমবি (mb) ডাটা ফ্রিতে পেয়ে যাবেন।

মোবাইল ভিপিএন সেরা ৩ টি এন্ড্রয়েড অ্যাপস

বর্তমানে কম্পিউটারে ইন্টারনেট ব্যবহারের তুলনায় অনেক বেশি মানুষ মোবাইলে ইন্টারনেট ব্যবহার করে। তাছাড়া মোবাইলে ইন্টারনেট কানেকশন অনেক সময় স্লো কাজ করে।

তাই আপনার উচিত মোবাইলে একটি VPN app ব্যবহার করা। এবার আপনার মনে প্রশ্ন তৈরি হতে পারে মোবাইলের জন্য সেরা ভিপিএন অ্যাপ্লিকেশন কোনটি?

মোবাইলে ভাইরাস দূর করার উপায়

নিচে আমি এন্ড্রয়েড মোবাইলের জন্য সেরা কয়েকটি free mobile VPN অ্যাপের নাম বলে দিয়েছি।

(১) HotspotShield 

মোবাইলে ফ্রি ভিপিএন ব্যবহার করার জন্য যত গুলো এন্ড্রয়েড অ্যাপস রয়েছে তার মধ্যে সেটা হলো HotspotShield VPN.

Google play store থেকে সম্পূর্ণ ফ্রিতে ডাউনলোড করে ব্যবহার করতে পারেন এবং প্রত্যেক দিন ৫০০ mb ডাটা ব্যবহার করতে পারবেন।

(২) Tunnelbear

এই VPN টি মোবাইল এবং কম্পিউটার ডিভাইস দুইটার জন্য ব্যবহার করতে পারবেন। তবে, এর মোবাইল এবং কম্পিউটারের জন্য আলাদা আলাদা অ্যাপ বা সফটওয়্যার রয়েছে।

গুগল প্লেস্টোর থেকে ফ্রিতে ডাউনলোড করার পাশাপাশি প্রতি মাসে ৫০০ এম্বি (mb) ফ্রি ডাটা পেয়ে যাবেন।

(৩) Free VPN monster

মোবাইল VPN এর মধ্যে এই monster অনেক জনপ্রিয় একটি ভিপিএন অ্যাপ। প্লেস্টোর থেকে ৩ লাখের বেশি ইউজার এটা ডাউনলোড করেছে।

এই VPN অ্যাপটি মোবাইলে ব্যবহার করার পরে ইন্টারনেট স্পিড অনেক ফাস্ট করে নিতে পারবেন।

VPN এর সুবিধা (Benefits of VPN)

  • VPN ব্যবহার করার মাধ্যমে নিজের প্রাইভেসি সুরক্ষিত রাখতে পারবেন।
  • ইন্টারনেট ব্যবহার করার সময় নিজের IP address হাইড (Hide) করে নিজেকে লুকিয়ে রাখতে পারবেন।
  • IP address নিজে সেট করার মাধ্যমে বিশ্বের যেকোনো দেশে আপনার লোকেশন (location) দেখাতে পারবেন।
  • ইন্টারনেটে থাকা ব্লগ ওয়েবসাইট এবং অ্যাপ গুলো সহজে প্রবেশ করতে পারবেন।
  • ইন্টারনেট স্পিড বৃদ্ধি করে নিতে পারবেন কিন্তু এর জন্য প্রিমিয়াম ভার্ষন ব্যবহার করলে ভালো।

ভিপিএন কি নিরাপদ

দেখুন বর্তমানে ভার্চুয়াল জগতে নিরাপত্তার ব্যাপারটা খুবই দুবোর্ধ্য। এক কথায় বলতে গেলে এখানে কোনো কিছু ১০০% নিরাপদ নয়।

তবে, বর্তমানে অনেক VPN কোম্পানি রয়েছে যাদের উপর আপনি আস্তা রাখতে পারেন। কিন্তু আপনি যে কোম্পানির ভিপিএন ব্যবহার করবেন সেটার সম্পর্কে প্রথমে ভালো করে জেনে নিবেন।

এমন অনেক VPN কোম্পানি রয়েছে যাদের খাজনার চেয়ে বাজনা বেশি। তারা আপনাকে আনলিমিটেড VPN দেওয়ার কথা বলে কিন্তু দেয় না।

তাই VPN ব্যবহার করার আগে জেনে বুঝে তারপর সেটা ব্যবহার করার চিন্তা করবেন। না হলে আপনার সকল পার্সোনাল ডাটা গুলো হ্যাকারের হাতে চলে যাবে।

শেষ কথা

আজকে আমরা জানলাম VPN কি, VPN কি কাজে লাগে, কিভাবে VPN ব্যবহার করবেন, সবচেয়ে ভালো VPN কোনটি এবং VPN এর সুবিধা গুলোর সম্পর্কে।

ভিপিএন সম্পর্কে যদি আরো কিছু জানতে চান তাহলে নিচের কমেন্টে জানাতে পারেন। আমি দ্রুত সময়ে উত্তর দিবো।

Leave a Comment

Share via
Copy link
Powered by Social Snap